খুলনা, বাংলাদেশ | ৪ শ্রাবণ, ১৪৩১ | ১৯ জুলাই, ২০২৪

Breaking News

  কোটা নিয়ে আপিল বিভাগে শুনানি রোববার; বিশেষ চেম্বার আদালতের আদেশ
  রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বরে পুলিশ বক্সে আগুন দি‌য়ে‌ছে বি‌ক্ষোভকারীরা
সাতক্ষীরায় বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম

‘হলুদ সাংবাদিকতা বন্ধে মূলধারার সাংবাদিকদের একজোট হতে হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরায় সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার মান সংরক্ষণে সাংবাদিকতার নীতি ও নৈতিকতা এবং সাংবাদিকতার আচরণবিধি প্রতিপালন সম্পর্কিত এক সেমিনার বৃহস্পতিবার (৮ জুন) সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ হুমায়ুন কবিরের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম।

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শেখ মঈনুল ইসলাম মঈন, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সদস্য ড. উৎপল কুমার সরকার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আতিকুল ইসলাম, জেলা তথ্য অফিসার জাহারুল ইসলাম প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম বলেন, অন্যের সংবাদ কপি পেস্ট করে কোন দিন ভালো সংবাদকর্মী হওয়া যায় না। হলুদ সাংবাদিকতা বন্ধে মূলধারার সাংবাদিকদের একজোট হতে হবে। শুধু নেতিবাচক খবর নয়, ইতিবাচক খবরও প্রকাশ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, অপসাংবাদিকতার দেশ ভরে গেছে। এটি নিয়ন্ত্রণের এখন সময় এসে গেছে। তবে বিচারিক সংস্থা হলেও প্রেস কাউন্সিলের ক্ষমতা কম থাকায় আমাদের কাছে অভিযোগ নিয়ে আসা ব্যক্তিদের সংখ্যা কম। সুন্দরবন সংলগ্ন এই জেলা সাংবাদিকদের জন্য একটি আদর্শ জায়গা।

তিনি বলেন, ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু যখন প্রেস কাউন্সিল গঠন করেন, তখন বিচারিক ক্ষমতায় কাউকে দন্ড দেওয়া যেত না। শুধুমাত্র তিরস্কার করা যেত। এখনও সেই আইন বহাল রয়েছে। বঙ্গবন্ধু সাংবাদিকদের সম্মান করতেন বলে বড় কোন শাস্তি তাদের জন্য রাখেননি। তবে এখন প্রেক্ষাপট ভিন্ন। আমরা দশ লাখ টাকা জরিমানা করার ক্ষমতা চেয়ে প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি। এটা সংসদে পাশ হলে প্রেস কাউন্সিল শক্তিশালী হবে।

বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম আরও বলেন, যখন প্রেস কাউন্সিল গঠিত হয়, তখন কেবল মুদ্রিত পত্রিকা বাজারে ছিল। তখন অনলাইন বা টেলিভিশনের আধিক্য ছিল না। অনলাইন বা টেলিভিশনের সাংবাদিকদেরও প্রেস কাউন্সিলের আওতায় আনার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।

সেমিনারে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সদস্য ড. উৎপল কুমার সরকার বলেন, সাংবাদিকতা এখন করপোরেট হাউজের কাছে বন্দী। ব্যাপক ঝুঁকি নিয়ে মফস্বল সাংবাদিকরা কাজ করলেও তারা ন্যায্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত।

সেমিনারে উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. আবুল কালাম আজাদ, মমতাজ আহমেদ বাপী, হাবিবুর রহমান, মোহাম্মাদ আলী সুজন, সাপ্তাহিক সুর্যের আলোর সম্পাদক আব্দুল ওয়ারেশ খান চৌধুরী, সাংবাদিক এস এম রেজাউল ইসলাম, সাংবাদিক আবুল কাশেম, দৈনিক দৃষ্টিপাত সম্পাদক জি এম নুর ইসলাম, সাংবাদিক এম বেলাল হোসাইন, সাংবাদিক মশিউর রহমান ফারুক প্রমুখ।

সেমিনারে জেলার প্রিন্ট্র ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকরা অংশগ্রহণ করেন। সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সুপারিন্টেন্ডেন্ট মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন।

 

খুলনা গেজেট/এনএম




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692

Don`t copy text!