খুলনা, বাংলাদেশ | ৯ চৈত্র, ১৪২৯ | ২৩ মার্চ, ২০২৩

Breaking News

  রোজায় ব্রয়লার মুরগির কেজি সর্বোচ্চ ১৯৫ টাকা : ভোক্তা অধিকার
  ব্যয় সংকোচনে রোজায় গণভবনে ইফতার পার্টি না করার সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রীর
  গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত আছে বলেই দেশের উন্নয়ন ধরে রাখা গেছে : প্রধানমন্ত্রী
  চট্টগ্রাম শাহ আমানতে দুবাইফেরত যাত্রীর শরীর থেকে পৌনে ৪ কেজি সোনা উদ্ধার
  খুলনায় আজ সেহরীর শেষ সময় ৪টা ৪৩ মিনিট

দাতাদের প্রতিশ্রুত ঋণ-অনুদান তলানিতে :বাড়ছে সুদ পরিশোধ

গেজেট ডেস্ক

বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভের অন্যতম উৎস দাতাদের ঋণ-সহায়তার প্রতিশ্রুতি তলানিতে নেমে এসেছে। গত ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) ৪৪০ কোটি (৪.৪০ বিলিয়ন) ডলার ঋণ-সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল দাতারা।

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের একই সময়ে তা ১৭৬ কোটি ২২ লাখ (১.৭৬ বিলিয়ন) ডলারে নেমে এসেছে। এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে গত বছরের একই সময়ের চেয়ে বিদেশি ঋণ-সহায়তার প্রতিশ্রুতি কমেছে ৬০ শতাংশ।

এই ছয় মাসে বিভিন্ন দাতা দেশ ও সংস্থার কাছ থেকে ৩৭৮ কোটি ৫ লাখ (৩.৭৮ বিলিয়ন) ডলারের ঋণ-সহায়তা পেয়েছে বাংলাদেশ। এই অঙ্ক গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ কম। গত বছরের জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে ৪১৭ কোটি ৬০ লাখ (৪.১৭ বিলিয়ন) ডলার এসেছিল।

অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গত ২০২১-২২ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন (১ হাজার কোটি) ডলারের বেশি বিদেশি ঋণ পেয়েছিল বাংলাদেশ, যা ছিল আগের বছরের চেয়ে ২৬ শতাংশ বেশি। দুই বছরের করোনা মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় চাপে পড়া অর্থনীতিকে সামাল দিতে কম সুদের বিশাল অঙ্কের এই ঋণ বেশ অবদান রেখেছিল।

কিন্তু সেই জোয়ার আর নেই। সরকার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) পাশাপাশি বিশ্বব্যাংক এডিবি (এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক), এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংকের (এআইআইবি) কাছ থেকে বাড়তি বাজেট সহায়তার জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এসব ঋণ পাওয়া গেলেও এবার অর্থবছর শেষে মোট ঋণ-সহায়তার পরিমাণ ৮ বিলিয়ন ডলারের বেশি হবে না বলে মনে করছেন অর্থনীতির গবেষক আহসান এইচ মনসুর।

তবে আশার কথা হচ্ছে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন সহযোগী জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) কাছ থেকে প্রত্যাশা অনুযায়ী ঋণ-সহায়তা পাওয়া গেছে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে সবচেয়ে বেশি অর্থ ছাড় করেছে জাপান, ৯২ কোটি ১৬ লাখ ১০ হাজার ডলার। এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, এই ছয় মাসে মোট বিদেশি ঋণের ২৪ দশমিক ৩৭ শতাংশই দিয়েছে জাইকা।

যুদ্ধের ধাক্কায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিও বেশ চাপে পড়েছে। অর্থনীতির প্রধান সূচকগুলোর পাশাপাশি রিজার্ভও কমছে; নেমে এসেছে ৩২ বিলিয়ন ডলারে। এই চাপ সামাল দিতে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন এখন কম সুদের বিদেশি ঋণ-সহায়তা। কিন্তু তেমনটি না হয়ে উল্টো কমছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) রবিবার (২৯ জানুয়ারি) বিদেশি ঋণপ্রবাহের হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, গত অর্থবছরের ধারাবাহিকতায় বিদেশি ঋণপ্রবাহের উল্লম্ফন নিয়ে শুরু হয়েছিল ২০২২-২৩ অর্থবছর। প্রথম মাস জুলাইয়ে প্রায় ৪৯ কোটি ডলারের বিদেশি ঋণ-সহায়তা এসেছিল, যা ছিল গত জুলাইয়ের চেয়ে ৪৮ দশমিক ৫০ শতাংশ বেশি। কিন্তু দ্বিতীয় মাস আগস্টে এসে হোঁচট খায়। ওই মাসে ৩৭ কোটি ৬৩ লাখ ডলারের ঋণ ছাড় করে দাতারা, যা ছিল আগের মাস জুলাইয়ের চেয়ে প্রায় ২৩ শতাংশ কম।

পরের দুই মাস সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে অবশ্য কিছুটা বেড়েছে। সেপ্টেম্বরে আসে ৪৮ কোটি ৪৯ লাখ ডলার। আর অক্টোবরে আসে ৬২ কোটি ১৪ লাখ ডলার। নভেম্বর মাসে তা কমে ৪৯ কোটি ডলারে নেমে আসে। সবশেষ গত বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরে অবশ্য বিদেশি ঋণ-সহায়তার অঙ্ক বেশ বেড়েছে; এই মাসে ১ বিলিয়ন ডলারের বেশি ১৩২ কোটি ডলার এসেছে। সব মিলিয়ে চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ বিদেশি ঋণ কম এসেছে দেশে।

‘এই মুহূর্তে কম সুদের বিদেশি ঋণ খুবই প্রয়োজন’ মন্তব্য করে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর অর্থনীতির বিশ্লেষক আতিউর রহমান বলেন, ‘আমাদের রিজার্ভ চাপের মধ্যে আছে। এই চাপ সামলাতে বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকাসহ বিভিন্ন দাতাসংস্থার ঋণ প্রয়োজন। এসব সংস্থার পাইপলাইনে যেসব ঋণ আছে, সেগুলো দ্রুত আনতে পদক্ষেপ নিতে হবে। সুখের খবর হচ্ছে, আইএমএফ ঋণ দিচ্ছে। ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই এই ঋণের প্রথম কিস্তি পাওয়া যাবে। বিশ্বব্যাংক, এডিবিসহ অন্যরাও আশ্বাস দিয়েছে। এসব ঋণ যত দ্রুত পাওয়া যাবে, ততই মঙ্গল। তাতে সরকার সহজেই সংকট মোকাবিলা করতে পারবে। আমার বিশ্বাস, ২০২৩ সাল থেকেই সরকার সাহস সঞ্চার করে ঘুরে দাঁড়াবে। অর্থনীতিও আগের অবস্থায় ফিরে আসবে।’

ইআরডির তথ্যে দেখা যায়, জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে দাতাদের কাছ থেকে যে ৩৭৮ কোটি ডলারের ঋণ-সহায়তা পাওয়া গেছে, তার মধ্যে প্রকল্প সাহায্য এসেছে ৩৫৭ কোটি ১৫ লাখ ডলার। আর অনুদান পাওয়া গেছে ২০ কোটি ৯০ লাখ ডলার। গত বছরের একই সময় প্রকল্প সাহায্য পাওয়া গিয়েছিল ৪০২ কোটি ৫৩ লাখ ডলার। অনুদান এসেছিল ১৬ কোটি ৭ লাখ ডলার।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ৭৯৫ কোটি ৭৫ লাখ ৬০ হাজার (৭ দশমিক ৯৬ বিলিয়ন) ডলার ঋণ-সহায়তা পেয়েছিল বাংলাদেশ। তার আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে এসেছিল ৭৩৮ কোটি (৭ দশমিক ৩৮ বিলিয়ন) ডলার।

বাংলাদেশে বিদেশি ঋণ বাড়তে থাকে ২০১৭-১৮ অর্থবছর থেকে। ওই বছরই এক লাফে অর্থ ছাড় ৩০০ কোটি থেকে ৬৩৭ কোটি ডলারে উন্নীত হয়। তারপর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আসে ৬৫৪ কোটি ডলার।

সবচেয়ে বেশি দিয়েছে জাপান : বরাবরের মতো এবারও সবচেয়ে বেশি ঋণ-সহায়তা পাওয়া গেছে জাইকার কাছ থেকে। জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে সংস্থাটি বাংলাদেশকে মাত্র ৩৪ কোটি ১০ লাখ ডলার ঋণ দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে; ছাড় করেছে প্রায় ১ বিলিয়ন (৯২ কোটি ১৬ লাখ) ডলার অর্থ ছাড় করেছে। এই ছয় মাসে মোট বিদেশি ঋণের ২৪ দশমিক ৩৭ শতাংশই দিয়েছে জাইকা।

এডিবি দিয়েছে ৫৬ কোটি ৭৩ লাখ ৪০ হাজার ডলার, প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ৩৮ কোটি ৩২ লাখ ডলার। বিশ্বব্যাংক ছাড় করেছে ৫৪ কোটি ৪ লাখ ডলার, প্রতিশ্রুতির অঙ্ক ৩০ কোটি ডলারের। চীনের কাছ থেকে পাওয়া গেছে ৫৩ কোটি ৫০ লাখ ৬০ হাজার ডলার; কোনো প্রতিশ্রুতি মিলেনি। এ ছাড়া ভারত দিয়েছে ১৬ কোটি ৩৫ লাখ ২০ হাজার ডলার। এ ছাড়া রাশিয়ার কাছ থেকে পাওয়া গেছে প্রায় ৪৪ কোটি ডলার। এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংক (এআইআইবি) দিয়েছে ২৫ কোটি ডলার।

সুদ পরিশোধ বেড়েছে : জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে আগে নেয়া ঋণের আসল ও সুদ বাবদ ১০৫ কোটি ৩৪ লাখ ৫০ হাজার ডলার পরিশোধ করেছে সরকার। গত বছরের একই সময়ে সুদ-আসল বাবদ প্রায় একই পরিমাণ ১০৪ কোটি ৪ লাখ ডলার শোধ করা হয়েছিল। এ হিসাবে এই পাঁচ মাসে গত বছরের একই সময়ের চেয়ে সুদ-আসল পরিশোধ বাবদ ১ দশমিক ২০ শতাংশ বেশি অর্থ ব্যয় করতে হয়েছে সরকারকে।




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692

Don`t copy text!