খুলনা, বাংলাদেশ | ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৬ ডিসেম্বর, ২০২২

Breaking News

  ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে তাকসিম এ খানের নিয়োগ বৈধ কি না, আদেশ মঙ্গলবার

সরকারি স্বাস্থ্যকর্মীদের নিয়মিত অফিস করতে হবে : পরিচালক

নিজস্ব প্রতিবেদক

ইউএসএআইডি’র নবযাত্রা প্রকল্প, ওয়ার্ল্ড ভিশন আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে খুলনা বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ মনজুর মুরশিদ বলেন সরকারি স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের অবশ্যই অফিসে নিয়মিত আসতে হবে। মানসিকতার পরিবর্তন না হলে, অফিসে নিয়মিত উপস্থিত না হলে এবং নিজের কাজ না করলে স্বাস্থ্য খাতে অতিরিক্ত কর্মী নিয়োগ করে কোনো লাভ হবে না।

খুলনার সিএসএস এভিএ সেন্টারে নবযাত্রা প্রকল্প আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় (এমওডিএমআর), উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামের সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ খুলনা ও সাতক্ষীরা জেলার ৪টি উপজেলা ৪০টি ইউনিয়নে ৭ বছরব্যাপী নবযাত্রা প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডাঃ মোঃ মফিজুল ইসলাম বুলবুল, লাইন ডিরেক্টর (ভারপ্রাপ্ত), ইনস্টিটিউট অফ পাবলিক হেলথ অ্যান্ড নিউট্রিশন (আইপিএইচএন)/ ন্যাশনাল নিউট্রিশন সার্ভিসেস (এনএনএস); ডাঃ গীতা রানী দেবী, পিএম-সিএম, সিবিএইচসি, ঢাকা; এবং ড. বি.এম. রিয়াজুল ইসলাম, ডেপুটি চিফ (মেডিকেল), এমআইএস-ডিজিএইচএস, ঢাকা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জনাব আশিস কুমার হালদার, সিনিয়র অপারেশন ম্যানেজার, নবযাত্রা প্রকল্প।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন খুলনা জেলা সিভিল সার্জর ডাঃ সুজাত আহমেদ এবং বিভাগের স্বাস্থ্য খাতের সিনিয়র কর্মকর্তাবৃন্দ।

অনুষ্ঠানের সভাপতি ডাঃ মনজুর মুরশিদ, পরিচালক-স্বাস্থ্য, খুলনা বিভাগ, বলেন “সরকারি স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের অবশ্যই অফিসে নিয়মিত আসতে হবে। আমাদের মানসিকতার পরিবর্তন না হলে, অফিসে নিয়মিত উপস্থিত না হলে এবং নিজের কাজ না করলে স্বাস্থ্য খাতে অতিরিক্ত কর্মী নিয়োগ করে কোনো লাভ হবে না। বিদ্যমান স্বাস্থ্য কর্মীদের অবশ্যই সময়নিষ্ঠ হতে হবে।

সকলের জন্য ন্যায়সঙ্গত খাদ্য নিরাপত্তা, পুষ্টি এবং দুর্বল সম্প্রদায়ের স্থিতিস্থাপকতা উন্নত করার লক্ষ্যে, নবযাত্রা প্রকল্প ওয়াশ, মাতৃ শিশু স্বাস্থ্য এবং পুষ্টি, লিঙ্গ, কৃষি এবং বিকল্প জীবিকা, দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসসহ বহুমাত্রিক কার্যকলাপের মাধ্যমে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের দুই জেলার ৮৫৯,৭০৪ জনকে সেবা প্রদান করেছে।

নবযাত্রা প্রকল্পের আওতায় ৯০৫ জন সরকারি বহুমুখী স্বাস্থ্য স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয় এবং তারাই ২০২০ সাল থেকে টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে জিএমপি পরিচালনা করছে।

প্রকল্প এলাকায় মোট ২৫,৮১৩ জন গর্ভবতী নারী এবং স্তন্যদানকারী মহিলাকে ১৫ মাস যাবৎ ৭২৫ মিলিয়ন টাকা (মাসিক ২,২০০ টাকা) প্রদান করা হয়েছে যেটি স্থানীয় স্বাস্থ্য এবং পুষ্টি উন্নয়নে বিরাট ভূমিকা রেখেছে।

নবযাত্রা প্রকল্পের মাধ্যমে ২ বছরের কম বয়সী ৬৫,৭৩৯ জন শিশুকে সেবা প্রদান করা হয়েছে। ৭,০০০-এরও বেশি সরকারি স্বাস্থ্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় পর্যায়ে স্বাস্থ্য ও পুষ্টির বিষয়ে ব্যাপক সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করাতে প্রকল্প এলাকায় শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানো উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পেয়েছে।




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692