খুলনা, বাংলাদেশ | ২ মাঘ, ১৪২৮ | ১৬ জানুয়ারি, ২০২২

Breaking News

  করোনার সংক্রমণ বাড়লেও এখনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত হয়নি : শিক্ষামন্ত্রী
  করোনার কারণে দুই সপ্তাহ পিছিয়ে ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু অমর একুশে গ্রন্থমেলা

জীবননগরে কৃষিকে সহজ করছে ‘রাইস ট্রান্সপ্লান্টার’

মুতাছিন বিল্লাহ, জীবননগর

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলায় কৃষকদের কাজকে সহজ করে তুলছে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার। আধুনিক যন্ত্রের সাহায্যে ধানের চারা রোপন যন্ত্রটি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জীবননগর উপজেলার বাঁকা ইউনিয়নের প্রতাবপুর মাঠে চলছে বোরো ধানের চারা রোপনের কাজ।এই রোপনের সময় কৃষকরা বেশি চিন্তিত থাকে শ্রমিক নিয়ে । শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষকরা ধান রোপন নিয়ে প্রতি বছরেই বিপাকে পড়েন।এ বছর পরীক্ষামূলক শুরু হয়েছে আধুনিক যন্ত্রের সাহায্য বোরো ধানের চারা রোপন যা এলাকার সাধারণ কৃষকের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আধুনিক যন্ত্রের সাহায্য ধান লাগানো মেশিন দেখতে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে কৃষকরা প্রতাবপুর মাঠে ভিড় জমাচ্ছে।

আধুনিক যন্ত্রের সাহায্যে ধানের চারা রোপনকারী কৃষক আবুল হোসেন বলেন, প্রতি বছর ৫ থেকে ৭বিঘা জমিতে আমরা ধানের চাষ করে থাকি। এ বছরেও করেছি তবে এই মেশিনের সাহায্য এবার পরীক্ষামূলকভাবে ১বিঘা জমিতে ধান রোপন করেছি। এতে সময় লেগেছে ১ঘন্টা খরচ হয়েছে বিঘা প্রতি ৮শ’ টাকা এবং সারিবদ্ধ ভাবে ধান রোপন করা হয়েছে এই পদ্ধতিতে আমার অনেক খরচ কম হয়েছে, সময়ও কম লেগেছে। আগে বিঘা প্রতি ধানের চারা রোপনে শ্রমিক খরচ ৩ হাজার টাকা হত এবং সময় লাগতো একদিন কিন্তু এই মেশিনে ১ঘন্টার মধ্যে ১বিঘা জমিতে ধানের চারা রোপন করা হয়েছে।

আধুনিক যন্ত্রের চালক চাষী রমজান বলেন, বর্তমান সময় আধুনিক হওয়ার ফলে সরকার কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়ন এবং কৃষিতে বিপ্লব ঘটনার জন্য জীবননগর উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় এবং কৃষি যন্ত্র সেবা কেন্দ্রের তত্বাবধানে আমি এই মেশিন দিয়ে এলাকাতে পরীক্ষামূলকভাবে ধানের চারা রোপন শুরু করেছি। এতে কৃষকদের বেশ সাড়া পাচ্ছি। এই মেশিনে খরচও কম হচ্ছে, সময়ও কম লাগছে। যার কারণে কৃষকরা উৎসাহিত হচ্ছে একদিনে ১৫বিঘা জমিতে ধান লাগানো যায়, আর এক বিঘা জমিতে ধান লাগাতে ১ লিটার তেল খরচ হচ্ছে ।আশা করি আগামিতে আরও বেশি সাড়া পাবো ।

বাঁকা ইউপি সদস্য মোঃ আব্দুল মান্নান বলেন, চাষী রমজান ধানের চারা রোপনের যে মেশিন এলাকাতে নিয়ে এসেছে নতুন হিসেবে তাতে বেশ সাড়া পাচ্ছে। এই মেশিন যদি সব এলাকাতে থাকে তা হলে ধান রোপনের জন্য কৃষকদের শ্রমিকের টেনশন আর করতে হবে না । আমরা চাই সরকার যেন এই মেশিন জীবননগর উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে প্রদান করে তা হলে এলাকায় শ্রমিক সংকট পুরন হবে।

জীবননগর উপজেলা কৃষি অফিসের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃনজরুল ইসলাম বলেন, বাঁকা ইউনিয়নের প্রতাবপুর গ্রামে  কৃষি যন্ত্র সেবা কেন্দ্রের তত্বাবধানে চাষী রমজানের মাধ্যমে পরীক্ষামূলক ভাবে ধানের চারা রোপন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তবে এই মেশিনের সাহায্য খুব সহজেই ধানের চারা রোপন করা যায় এবং খরচ কম হয় সময় কম লাগে পাশাপাশি অল্প সময়ের মধ্যে চারা সুন্দর ভাবে জমিতে লেগে যায়। তবে আধুনিক সময়ে আধুনিক যন্ত্রের সাহায্যে চাষাবাদ করলে কৃষকরা অবশ্যই লাভবান হবে।

খুলনা গেজেট/ টি আই




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692