খুলনা, বাংলাদেশ | ১২ বৈশাখ, ১৪৩১ | ২৫ এপ্রিল, ২০২৪

Breaking News

  রাঙামাটির সাজেকে শ্রমিকবাহী মিনি ট্রাক পাহাড়ের খাদে পড়ে ৯ জন নিহত

খুলনায় সহকারি শিক্ষকের হামলায় প্রধান শিক্ষক হাসপাতালে

 নিজস্ব প্রতিবেদক

খুলনার ৩৮নং তেরখাদা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এহতেশামুল হককে মারপিট করেছেন ওই স্কুলেরই সহকারি শিক্ষক সরদার নবীর হোসেন।

বুধবার (১৮ জানুয়ারি) স্কুল চলাকালীন সময়ে এ ঘটনা ঘটে। পরে আহত অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এর আগে মারপিটের এক পর্যায়ে অন্যরা তাকে বাঁচাতে স্কুলের বাথরুমে ঢুকিয়ে বাইরে থেকে দরজা আটকে রাখেন। বাথরুমে বসেই তিনি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) ফোনে ঘটনা জানিয়ে তাকে উদ্ধারের আহবান জানান। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাকে উদ্ধার করে। ৩৮নং তেরখাদা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি বিগত ২০২২ সালে খুলনা জেলার শ্রেষ্ঠ স্কুল হিসেবে পুরস্কৃত হয়।  শিক্ষক এহতেসামুল হক ২০১৫ সালে খুলনা জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক।

আহত এহতেশামুল হক বলেন, স্কুলের মোট শিক্ষক ১০ জন। সহকারি শিক্ষক নবীর হোসেন স্কুলে নিয়মিত উপস্থিত না হওয়ায় সম্প্রতি তাঁর বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলায় তাকে লঘু সাজা দেয়া হয়েছে। কিন্তু মামলার ঘটনায় তিনি আমাকে দায়ি করে নানাসময় দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল।  বুধবার শিক্ষকদের কাছে স্কুলের যাবতীয় ব্যয়ের হিসাব উপস্থাপন করা হয়। এ সময় নবীর হোসেন আমাকে বলেন -আপনি স্কুলের টাকা মেরে খান। এক পর্যায়ে সে ফোন দিয়ে লোকজন ডেকে আনে ও আমার ওপর চড়াও হয়। আমাকে লাথি, ধাক্কা ও মারপিট শুরু করে।  স্কুলের অন্যান্য শিক্ষকরা আমাকে বাথরুমে ঢুকিয়ে বাইরে থেকে সিকল আটকে রাখেন।

তিনি বলেন, আমি তখন বাথরুমে বসেই উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও ওসিকে পুরো ঘটনা জানাই। তাঁরা থানা থেকে পুলিশ ফোর্স এসে আমাকে উদ্ধার করে। এদিকে ঘটনার পর খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন ছুটে এলে নবীর হোসেন পালিয়ে যায়। আমার কানে মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত লেগেছে। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর এ বিষয়ে লিখিত দেয়া হয়েছে।

এদিকে খবর পেয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম স্কুলে হাজির হলেও শিক্ষক সরদার নবীর হোসেনকে পাননি। ঘটনার পর থেকেই তার মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. কামরুল ইসলাম বলেন, সহকারি শিক্ষক প্রধান শিক্ষককে পিটিয়েছেন বিষয়টি শুনেছি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তেরখাদা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ শারাফাত হোসেন মুক্তি ঘটনার বিষয়ে বলেন, ছাত্র ছাত্রীদের সামনে ক্লাস টাইমে এই  ধরনের ঘটনা খুবই ন্যাক্কারজনক।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে কথা বলেছি, কালকে (বৃহস্পতিবার) বিষয়টি নিয়ে বসব।

খুলনা গেজেট/কেডি




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692

Don`t copy text!