খুলনা, বাংলাদেশ | ১৭ আষাঢ়, ১৪২৯ | ১ জুলাই, ২০২২

Breaking News

  গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৩৮০ জন ও আক্রান্ত হয়েছেন ৭ লাখ ১৯ হাজার ৪৮০ জন

সকলের সহযোগিতায় মামুন বাঁচতে চাই

জীবননগর প্রতিনিধি

জীবনের তাগিদে ঢাকা সাভার আশুলিয়া আউব পাড়ায় অবস্থিত ডমিনিজ স্টিল ব্লিডিং লিমিটেডে নামের একটি কোম্পানীতে কাজ করতেন মামুন।কাজ করা অবস্থায় গত ৮ জানুয়ারি মিলের একটি পিলার শরীরের উপর পড়ে তার মলদ্বারের ও রক্তের নালী ছিড়ে যায়। সেই থেকে মামুন ঢাকাতে একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন টাকার অভাবে ঢাকা থেকে বর্তমানে যশোর রেনেসা হসপিটালে ভর্তি রয়েছে। অর্থের অভাবে আজ মামুন মৃত্যুর পথে। সকলের সহযোগিতায় বাঁচতে চায়।

জীবননগর উপজেলার কে’ডি’কে ইউনিয়নের কাশিপুর মাঠপাড়া গ্রামের হতদরিদ্র দিনমজুর ছমির উদ্দিনের ছেলে মামুন।

মামুনের পরিবার এখনো স্বপ্ন দেখছে, সুস্থ হয়ে অন্যদের মতো হাসি-খুশি জীবন কাটাবে। এজন্য তার চিকিৎসার প্রয়োজন।চিকিৎসার জন্য সহযোগিতার হাত বাড়ানোর আকুতি জানিয়েছে অসহায় পরিবারটি।

জানা যায়, বৃদ্ধবাবার মুখে হাসি ফোটানোর জন্য এবং সংসারে অভাব দুর করার জন্য ঢাকা সাভার আশুলিয়া আউব পাড়ায় অবস্থিত ডমিনিজ স্টিল ব্লিডিং লিমিটেডে নামের একটি কোম্পানীতে কাজ করেন।তার আয় তাদের সংসার বেশ ভালোই চলছিল। তবে গত ৮ জানুয়ারি মিলের একটি পিলার শরীরের উপর পড়ে তার মলদ্বার ও রক্তের নালী ছিড়ে যায় সেই থেকে মামুন ঢাকাতে একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন টাকার অভাবে ঢাকা থেকে চিকিৎসক তাকে বাড়িতে রেফাট করেন বাবার শেষ সম্বল এক বিঘা ভিটা জমি বিক্রি করে যশোর রেনেসা হসপিটালে চিকিৎসা করাচ্ছেন। যশোর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃমোঃ মাশহুরুল হক জুয়েলের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা করানো হচ্ছে।

ছমির উদ্দিন জানান, ‘মামুন কাজ করে সংসার চালাতো আমি বয়সের ভারে আর কাজ করতে পারি না । আমার যে টুকু জমিন ছিল তা আমার ছেলের চিকিৎসা করতে যেয়ে সব শেষ তাকে চিকিৎসা করার জন্য অনেক টাকা প্রয়োজন।কিন্তু আমাদের পরিবারের সেই সামর্থ্য নেই।আমি সবার কাছে আমার ছেলের জন্য সাহায্য চাই।

মামুন বলেন, আমি বাচতে চাই, আমি আবার আমার বাবার পাশে থাকতে চাই ।আমার কপাল খারাপ, গরিব ঘরের ছেলে আমি। আমার চিকিৎসায় সবার সহযোগিতা ও দোয়া চাই।

আসুন আমরা সবাই মামুনকে সহযোগিতা করি। মামুনের নগদ এ্যাকাউন্ট নাম্বার- ০১৩১৩-২৪৬৮৩৭




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692