খুলনা, বাংলাদেশ | ৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ | ১৯ মে, ২০২২

Breaking News

  ২২ মে পর্যন্ত বাড়ানো হলো সরকারি-বেসরকারি হজযাত্রী নিবন্ধনের সময়
  সংসদের বাজেট অধিবেশন বসছে ৫ জুন

যশোরে ইউপি নির্বাচন নিয়ে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় আদালতে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর

যশোরের কেশবপুরের মঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মারপিটের ঘটনায় ১৮ জনকে আসামি করে যশোর আদালতে দুটি মামলা দায়ের হয়েছে। মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) কন্দর্পপুর গ্রামের হাশেম আলী গোলদারের ছেলে শফিকুল ইসলাম ও শেখ আব্বাস আলীর ছেলে আমজানুর রহমান বাদী হয়ে এ মামলা দুটি করেছেন।

জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মাহাদী হাসান অভিযোগ দুইটি গ্রহণ করে কেশবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) এজাহার হিসেবে গ্রহণ করার আদেশ দিয়েছেন।

শফিকুল ইসলামের দায়ের করা মামলার আসামিরা হলো, উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের আকরাম মোড়লের ছেলে আজিজুর রহমান, মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে শহিদুল ইসলাম, চুয়াডাঙ্গা গ্রামের আব্দুর কাদের বিশ্বাসের ছেলে ইনজামুল বিশ্বাস, মৃত নওশের বিশ্বাসের ছেলে নুরোল ইসলাম, বড়েঙ্গা গ্রামের মৃত জাফর দাইয়ের ছেলে ছাত্তার দাই, কন্দর্পপুর গ্রামের শরিফুল মোড়লের ছেলে আব্দুল কুদ্দুস, আজিজ মোড়লের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক মোড়ল ও মজিবর সানার ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান।

আমজানুর রহমানের দায়ের করা মামলার আসামিরা হলো, মঙ্গলকোট গ্রামের আহকাম মোড়লের ছেলে আজিজুর রহমান, আমজেদ হোসেনের ছেলে কামরুজ্জামান মিন্টু, ইলিয়াস হোসেন, নুরোর ছেলে আতিয়ার রহমান, নজরুল ইসলামের ছেলে নাজমুল, বসুন্তিয়া গ্রামের আব্দুল জলিল গাজীর ছেলে মিন্টু গাজী, কন্দর্পপুর গ্রামের হাশেম মোড়লের ছেলে রুহল আমিন ও মৃত আব্দুল তালেবের ছেলে আবু সাইদ।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ ডিসেম্বর রাতে কেশবপুরের কন্দর্পপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আনারস প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সভায় শফিকুল ইসলাম যোগ দেয় ও শেষে রাত ১১টার দিকে স্কুলের পূর্বপাশের রাস্তায় উঠলে আসামিরা তাকে ধরে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। পুলিশ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে হামলায় ব্যবহৃত দেশিয় অস্ত্র ও লাঠি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দিলে মামলা হিসেবে রুজু না হওয়ায় তিনি আদালতে এ মামলা করেছেন।

এদিকে, গত ৩০ ডিসেম্বর বিকেলে আসামিরা মঙ্গলকোট বাজার আনারস প্রতীকের সমর্থকদের খুঁজে মারপিট করছিলো। এর মধ্যে আমজানুর রহমান বাজার মসজিদে নামাজ পড়তে যান। আসামিরা তাকে মসজিদের সামনে পেয়ে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা করেন। এসময় আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। এরপর তিনি সুস্থ হয়ে থানায় অভিযোগ দিলে পুলিশ তা গ্রহণ না করায় তিনি আদালতে এ মামলা করেছেন।

 

খুলনা গেজেট/এনএম




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692