খুলনা, বাংলাদেশ | ৩ ভাদ্র, ১৪২৯ | ১৮ আগস্ট, ২০২২

Breaking News

  গাজীপুরে প্রাইভেটকারের ভেতর থেকে শিক্ষক দম্পতির মরদেহ উদ্ধার
  ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন দুই হাজার ১৪ জন ও আক্রান্ত হয়েছেন ৭ লাখ ৫৫ হাজার ৬৯৩ জন

চৌগাছায় শতবর্ষী মা’য়ের কবরের স্থান নির্ধারণ নিয়ে বিরোধ, ওসির হস্তক্ষেপে দাফন

চৌগাছা প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছার হাকিমপুর ইউনিয়নে শতবর্ষী মা’য়ের লাশ ফেলে রেখে কোথায় দাফন করা হবে এই নিয়ে চরম বিরোধ সৃষ্টি হয়  ভাই-বোনদের মধ্যে। পরে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজের হস্তক্ষেপে আপোষ-মিমাংশা শেষে রাত ১১টায় জানাজা শেষে দাফন করা হয় সেই মাকে।

এরআগে শতবর্ষী মা’ আছিরণ বেগমের নিজ নামে থাকা দুই কোটি টাকা মূল্যের ৮বিঘা জমি পাওয়ার অব এটর্নি করে লিখে নিয়ে একটি ভাঙাচুরা টিনের ঘরে মলমূত্রের মধ্যে মা’কে ফেলে রেখেছিলো তজবীজপুর গ্রামের বজলুর রহমান ও ফজলুর রহমান নামে দুই ছেলে। বঞ্চিত করে বৃদ্ধার অন্য দুই ছেলে ও দুই মেয়েকে। পরে গত ২২ জুন একটি মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানা বিভিন্ন ধরনের ফল কিনে নিয়ে গিয়ে ওই মাকে মলমূত্রের মধ্যে থেকে ছেলে বজলুর রহমানের ফ্লাট বাড়িতে উঠিয়ে দিয়ে আসেন। এরপরও মাকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করতে থাকে বজলু ও ফজলু। পরে মা’য়ের একজন মেয়ে তাঁকে নিয়ে যান তাঁর (মেয়ের) বাড়িতে। তবে মা’ সেখানে না থাকতে চাওয়ায় কয়েকদিন আগে আবারও ছেলের বাড়িতে দিয়ে যান তাঁকে। এরপরই ছেলে বজলু ও ফজলু আবারও মাকে সেই পড়ো বাড়িতে রেখে আসে। সেখানেই গত বৃহস্পতিবার (৪আগস্ট) মৃত্যু হয় ওই মায়ের।

তবে দুপুরে মা’য়ের মৃত্যু হলেও মা’ আছিরণের ওছিয়ত না মেনে অন্য জায়গায় কবর খোড়ার ব্যবস্থা করেন দুই ছেলে বজলু ও ফজলু। এনিয়ে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন মা’য়ের সেজো ছেলে জামির হোসেন, মায়ের দুই মেয়ে ও হারিয়ে যাওয়া চতুর্থ সন্তানের দুই মেয়েসহ অন্যান্য নাতি নাতনিরা। অন্য ছেলে, নাতি-নাতনিরা আছিরণের ওছিয়ত অনুযায়ী তাঁর স্বামীর কবরের পাশে (চৌগাছা-কোটচাঁদপুর) সড়কের তজবীজপুর গ্রামে কবরস্থ করতে চাইলেও বজলু ও ফজলু এবং তাঁদের সন্তানেরা গ্রামের মাঠের মধ্যে অন্য নির্জনস্থানে কবর খুড়ে রেখে সেখানে কবরস্থ করতে অটল থাকে। এনিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ চলতে থাকে। পরে বিষয়টি থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়। চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজের নির্দেশে পুলিশ বজলুর রহমান, ফজলুর রহমান, জামির হোসেন, মা’য়ের হারিয়ে যাওয়া চতুর্থ সন্তানের দুই মেয়েসহ অন্যান্য নাতি-নাতনিদের থানায় নিয়ে আসেন। সেখানে রাত দশটা ১৫ মিনিটের দিকে আপোষ-মিমাংশা শেষে বজলুর রহমান ও ফজলুর রহমানদের খুড়ে রাখা কবরেই আছিরণকে কবরস্থ করার বিষয়ে অন্যরা একমত হন। পরে রাত ১১টায় তজবীজপুর গ্রামের বাড়িতে জানাজা শেষে মা’কে দাফন করা হয়। চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজও জানাজায় অংশ নেন।

বিষয়টি নিশ্চত করে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, আপোষ-মিমাংশা শেষে রাত ১১টায় ওই মায়ের জানাজা সম্পন্ন হয়। পরে বড় দুই ছেলের খুঁড়ে রাখা কবরেই সবার সম্মতিতে তাঁকে দাফন করা হয়।

খুলনা গেজেট/ টি আই

 




আরও সংবাদ

খুলনা গেজেটের app পেতে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

© 2020 khulnagazette all rights reserved

Developed By: Khulna IT, 01711903692